জীবনীসংবাদ

ভারতরত্ন অটল বিহারী বাজপেয়ী সংক্ষিপ্ত জীবনী একনজরে

ভারতরত্ন তথা প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী অটল বিহারী বাজপেয়ী জম্ম ১৯২৪ সালের ২৫ ডিসেম্বর, মধ্যপ্রদেশের গোয়ালিয়রে। ব্রাহ্মণ পরিবারের সন্তান। সাত ভাইবোন। বাবা কৃষ্ণ বিহারী বাজপেয়ী ছিলেন গ্রামের স্কুলের শিক্ষক ও কবি ছিলেন এবং মা কৃষ্ণা দেবী। তাঁর ঠাকুরদা পণ্ডিত শ্যামলাল বাজপেয়ী উত্তরপ্রদেশের বাতেশ্বরের গ্রাম থেকে গোয়ালিয়রের মোরেনায় চলে আসেন। চলুন দেখে নেওয়া যাক অটল বিহারী বাজপেয়ীর জীবনের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অংশ একনজরে। এটিও পড়ুন – কম্পিউটার কীবোর্ড শর্টকার্ট কী টেকনিক, Top 100 Shortcut Key

ভারতরত্ন অটল বিহারী বাজপেয়ী সংক্ষিপ্ত

  • ২৫ শে ডিসেম্বর, ১৯২৪ঃ গোয়ালিয়রে জম্ম।
  • ১৯৪২ঃ ভারত ছাড়ো আন্দলনে যোগ, গ্রেফতার হন।
  • ১৯৪৭ঃ সঙ্গের প্রচারক।
  • ১৯৫১ঃ জনসঙ্ঘে যোগদান।
  • ১৯৫৭ঃ উত্তরপ্রদেশের বলরামপুর থেকে প্রথম বার লোকসভায়।
  • ১৯৬২ঃ রাজ্যসভার সদস্য পদ লাভ।
  • ১৯৬৮ঃ জনসঙ্ঘের প্রধান হন।
  • ১৯৭৫ঃ জরুরি অবস্থার সময়ে বেঙ্গালুরুতে জেলবন্দি হন।
  • ১৯৭৭ঃ মোরারজি দেশাই সরকারের বিদেশমন্ত্রী, রাষ্ট্রপুঞ্জে প্রথম হিন্দি ভাষণ।
  • ১৯৮০ঃ বিজিপির প্রতিষ্ঠা, দলের প্রথম সভাপতি।
  • ১৯৯২ঃ পদ্ম বিভূষণ।
  • ১৯৯৩ঃ লোকসভার বিরোধী দলনেতা।
  • ১৬ মে ১৯৯৬ঃ প্রথমবার প্রধান মন্ত্রী হন।
  • ১ জুন, ১৯৯৬ঃ আস্থা ভোটে হেরে ১৩ দিনের সরকারের পতন।
  • ১৯ মার্চ, ১৯৯৮ঃ পুনরায় প্রধান মন্ত্রী। এন ডি এ  গঠন করেন।
  • ১১-১৩ মে, ১৯৯৮ঃ পোখরানে পাঁচটি পরীক্ষামূলক পারমাণবিক বিস্ফোরণ।
  • ১৯ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৯ঃ দিল্লি লাহোর বাসযাত্রা শুরু। নিজেই গেলেন।
  • ২১ ফেব্রুয়ারি, ১৯৯৯ঃ লাহৌর ঘোষণাপত্র সই।
  • ১৭ এপ্রিল, ১৯৯৯ঃ এডিএম কে সমর্থন তোলায় আস্থা ভোট। ১ ভোটে হেরে সরকার পতন।
  • জুলাই ১৯৯৯ঃ কার্গিল যুদ্ধ জয়লাভ।
  • ১৩ অক্টোবর, ১৯৯৯ঃ তৃতীয় বার প্রধান মন্ত্রী লাভ।
  • ১৪-১৬ জুলাই, ২০০১ঃ মুশারফের সঙ্গে আগরা বৈঠক।
  • ২০০৫ঃ সক্রিয় রাজনীতি থেকে অবসর নেন।
  • ২০১৫ঃ ভারত রত্ন লাভ। 
  • ১১ জুন, ২০১৮ঃ নয়াদিল্লির এইমস হাসপাতালে ভর্তি।
  • ১৬ আগস্ট, ২০১৮ঃ ৯৩ বছর বয়সে এইমসে প্রয়াত হন।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button