Others

কেনাকাটা করতে গিয়ে প্রতারিত হলে কী করবেন

কেনাকাটা করতে গিয়ে প্রতারিত হলে কীভাবে অভিযোগ জানাতে হবে

প্রত্যেকদিন আমাদের কিছু না কিছু কেনাকাটা করতে হয়। রান্না করার সামগ্রী থেকে শুরু করে বাড়ির যাবতীয় সামগ্রী এছাড়া কৃষি ক্ষেত্রে বীজ থেকে বিভিন্ন পণ্য।

সারা দুনিয়ায় আর্থিক লেনদেনের তিন ভাগের দুই ভাগ জোগান দেয় উপভোক্তারা, অথচ সেই উপভোক্তাদের মতামত কোনো গুরুত্বই পায় না। প্রকৃত অর্থে সবাই উপভোক্তা’। অর্থনৈতিক বাজারে উপভোক্তারাই সব থেকে গরিষ্ঠ। কিন্তু অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ হওয়া সত্ত্বেও তাদের কথা শোনাই হয় না। ১৯৮৬ সালের ২৪ ডিসেম্বর ভারতবর্ষের উপভোক্তাদের কাছে একটি অত্যস্ত স্মরণীয় দিন। এই দিন থেকে এ দেশে উপভোক্তা সুরক্ষা আইন, ১৯৮৬ (Consumer Protection Act, 1986) চালু করা হয়।

কেনাকাটা করতে গিয়ে প্রতারিত হলে কী করবেন

উপভোক্তা কে?

কোনো জিনিস কেনা বা পরিসেবা নেওয়ার ক্ষেত্রে

  • কোনো ব্যক্তি বা সংগঠন, প্রতিষ্ঠান, সমবায় সমিতি উপভোক্তা হিসাবে বিবেচিত হবেন।
  • যিনি বা যাঁরা নিজের বা নিজেদের ব্যবহারের জন্য কোনো দ্রব্য বা পরিসেবা কেনেন।
  • তিনি বা তাঁরা নগদে বা ধারে কিনলেও উপভোক্তা হিসেবে বিবেচিত হবেন

কেনাকাটায় উপভোক্তার অধিকারগুলি হলো :

  • জীবন ও সম্পত্তির পক্ষে ক্ষতিকারক জিনিস বা পরিসেবার বিপণনের বিরুদ্ধে নিরাপত্তার অধিকার।
  • জিনিস বা পরিসেবা সংক্রান্ত তথ্যলাভের অধিকার।
  • প্রতিযোগিতামূলক দামে জিনিস বা পরিসেবার মধ্য থেকে বাছাই এর অধিকার।
  • প্রতিকার চাওয়ার অধিকার।
  • শুনানির অধিকার।
  • উপভোক্তা শিক্ষার অধিকার

কেনাকাটা’য় প্রতারিত হলে কীভাবে অভিযোগ জানাতে হবে :

  • সঠিক পদ্ধতিতে লিখিত ন্যূনতম তিনটি অভিযোগপত্র এবং যত জন অভিযুক্ত আছেন তার সমসংখ্যক অতিরিক্ত অভিযোগ সংশ্লিষ্ট ফোরামে জমা দিতে হবে।
  • অভিযোগপত্রের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র অতি অবশ্যই জন্য দিতে হবে।
  • অভিযোগপত্র জমা দিতে হবে ফোরামের সভাপতিকে উদ্দেশ্য করে।

দরখাস্তে কী কী উল্লেখ করতে হবে।

  1. অভিযোগকারীর নাম, ঠিকানা (পিন কোড সহ) ও ফোন নম্বর।
  2. যার বা যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তার বা তাদের নাম ও পুরো ঠিকানা (পিন কোড এবং খানর নাম সহ) ও ফোন নম্বর।
  3. অভিযোগের বিবরণ।
  4.  কী কী প্রতিকার চান।
  5. অভিযোগটি অন্য কোনো আদালতে বিচারাধীন নেই এই মর্মে ঘোষণা।
কতদিনের মধ্যে অভিযোগ জানাতে হবে। 
  • অভিযোগের কারণ ঘটার ২ বছরের মধ্যে।
  • যদি উপযুক্ত কারণে ওই সময়ের মধ্যে অভিযোগ জানানো না যায় এবং যদি সে ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ফোরাম সন্তুষ্ট হন তবে তার পরেও অভিযোগ জানানো যেতে পারে।
কী কী প্রতিকার পাওয়া যেতে পারে
  • দ্রব্য বা পরিসেবার ত্রুটি অপসারণ।
  • দ্রব্য বা পরিসেবার বদল বা দাম ফেরত।
  •  ক্ষতিপুরণ।
  • পরিবেশ বা স্বাস্থ্যহানিকর জিনিসের বেচাকেনা বন্ধ বা প্রত্যাহারের আদেশ।
  • অসাধু ব্যাবসা/নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যাবসা বন্ধ বা নিয়ন্ত্রণের আদেশ।
  • বিভ্রান্তি সৃষ্টি করা বিজ্ঞাপন প্রত্যাহার ও তার ক্ষতিকর দিক প্রশমনের জন্য উপযুক্ত নেওয়ার আদেশ।

এটিও পড়ুন – ছাত্র ছাত্রীদের জন্য সেরা অনলাইন জব Top 10 Online Job For Student

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button