বাংলা ব্যাকরণ

ভাব সম্প্রসারণ লেখার সঠিক নিয়ম

সকল শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য আগমনী বার্তা  শিক্ষা পোর্টাল এ বাংলা ব্যাকরণের এক গুচ্ছ ভাব – সম্প্রসারণ শেয়ার করা হল। প্রত্যেক বিদ্যার্থী বন্ধুদের খুব কাজে আসবে বলে আমরা মনে করি। [ ভাব সম্প্রসারণ লেখার নিয়ম, ভাবসম্প্রসারণ লাইব্রেরি, বাংলা ভাবসম্প্রসারণ তালিকা, ভাবসম্প্রসারণ pdf download, ভাবসম্প্রসারণ ইচ্ছা থাকলে উপায় হয়,  ভাব সম্প্রসারণ সকলের তরে সকলে আমরা ] নিম্নে ভাব সম্পসারণ কাহাকে বলে? কিভাবে সঠিক নিয়মে ভাব সম্পসারণ লেখা যায়?  তা স্টেপ বাই স্টেপ আলোচনা করা হয়েছে। এছারও কয়েকটি নমুনা ভাব সম্পসারন যেমন – ” কেরোসিন শিখা বলে মাটির প্রদীপে// ভাই বলে ডাক যদি দেব গলা টিপে // হেন কালে আকাশেতে উঠিলেন চাঁদা // কেরোসিন শিখা বলে- “এসো মোর দাদা।”  তার মূলভাব এবং  বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। 

ভাব-সম্প্রসারণ’ কথাটির অর্থ কবিতা বা গদ্যের অন্তর্নিহিত অর্থ ব্যাখ্যা করা,বিস্তারিত করে লেখা ,বিশ্লেষণ করা। ঐশ্বর্যমন্ডিত কোন কবিতার চরণে কিংবা গদ্যাংশের সীমিত পরিসরে বীজধর্মী কোন বক্তব্য ব্যাপক ভাবব্যঞ্জনা লাভ করে । সে ভাববীজটিকে উন্মোচিত করার কাজটিকে বলা হয় ভাব সম্প্রাসারণ ।

ভাব সম্প্রসারণ লেখার সঠিক নিয়ম :

ভাব- সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে কয়েকটি দিকের প্রতি বিশেষ দৃষ্টি দেওয়া প্রয়োজন ।
ক. প্রদত্ত চরণ বা গদ্যংশটি একাধিকবার মনোযোগ সহকারে পড়তে হবে।লক্ষ্য হবে প্রচ্ছন্ন বা অন্তর্নিহিত ভাবটি কী, তা সহজে অনুধাবন করা ।
খ.অন্তর্নিহিত মূল ভাবটি কোন উপমা,রূপক প্রতীকের আড়ালে নিহিত আছে কিনা, তা বিশেষভাবে লক্ষ করতে হবে ।মূলভাবটি যদি রূপক–প্রতীকের আড়ালে প্রচ্ছন্ন থাকে,তবে ভাব সম্প্রসারণের সময় প্রয়োজনে অতিরিক্ত অনুচ্ছেদ যোগে ব্যাখ্যা করলে ভালো হয় ।
গ.সহজ ভাষায়,সংক্ষেপে ভাবসত্যটি উপস্থাপন করা উচিত।প্রয়োজনে যুক্তি উপস্হাপন করে তাৎপর্যটি ব্যাখ্যা করতে হবে ।
ঘ.মূল ভাববীজটি বিশদ করার সময় সহায়ক দৃষ্টান্ত,প্রাসঙ্গিক তথ্য বা উদ্ধৃতি ব্যবহার করা চলে।
ঙ. ভাব সম্প্রসারণ করার সময় মনে রাখতে হবে যে, যেন বক্তব্যের পুনরাবৃত্তি না ঘটে।বারবার একই কথা লেখা ভাব-সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে দূষণীয় ।
চ. মূল ভাবটি থেকে সম্প্রসারণটি যেন কোনো রকমে প্রসঙ্গচ্যুত না হয় ।

একটি নমুনা নিম্নে দেওয়া হল :

কেরোসিন শিখা বলে মাটির প্রদীপে,
ভাই বলে ডাক যদি দেব গলা টিপে,
হেন কালে আকাশেতে উঠিলেন চাঁদা,
কেরোসিন শিখা বলে- “এসো মোর দাদা।”

মূলভাব : বিত্তশালী মানুষদের প্রতি অনুরাগ এবং নিজের থেকে বিত্তহীন স্তরের মানুষদের প্রতি অবজ্ঞা, মানবসমাজের এক শ্রেণির মানুষের দুর্বল চারিত্রিক বৈশিষ্ট্য।

সম্প্রসারিত ভাব : পৃথিবীতে মানব চরিত্রের বৈশিষ্ট্য রহস্যময়। আমাদের এই সমাজে মানুষ সবসময় চেষ্টা করে সমাজের ওপরের স্তরের মানুষের সঙ্গে আত্মীয়তা স্হাপন করতে।নিজেদের নীচের তলার মানুষের দিকে কেউ ফিরেও তাকায় না । আত্মীয় হলেও তাকে উপেক্ষা করে চলে। মূলত মানুষ নিজের চেয়ে অবস্থানে ছোটোদের চরমভাবে অস্বীকার করে, আর বড়োদের তোষামদ করে আপন করে নিতে চায়। পদমর্যাদা ও সামাজিক অবস্থান মানুষকে অন্ধ করে দেয়। এর প্রলোভনে মানুষ নিজের আপন মানুষকে দূরে ঠেলে দিয়ে, দূরের মানুষকে আপন করার চেষ্টা করে। এতে করে সে তার নিজস্বতাকে হারিয়ে ফেলে, কিছুই অর্জন করতে পারে না।

প্রকৃতির অমোঘ নিয়মেই প্রকৃতিতে আমরা আলো এবং অন্ধকারের উপস্থিতি দেখতে পাই। প্রতিনিয়ত যথা সময়ে দিনের শেষে পৃথিবী অন্ধকারের কালো চাঁদরে ঢেকে যায়। রাতের আঁধার কাটলে সকালে পৃথিবীর পৃষ্ঠদেশ আবার সূর্যের আলোয় আলোকিত হয়। প্রাকৃতিক নিয়মেই এমনটা ঘটে। দিনের স্নিগ্ধতা আর রাতের কোমলতা এসব কিছুকে সৃষ্টিকর্তার অফুরন্ত নিয়ামত হিসেবে চিহ্নিত করা যায়। সুন্দর এই পৃথিবীতে পরস্পর বিপরীতধর্মী বিষয় ও বস্তুসমূহের মধ্যে তীব্র আকর্ষণ বিরাজ করে। এসব উপাদানের দ্বান্দ্বিক পালা বদল প্রক্রিয়া সর্বদা সচল এবং অস্তিত্বমান। জন্ম-মৃত্যু, সৃষ্টি-ধ্বংস, আলো-আঁধার, আনন্দ-বেদনা, সুখ-দুঃখ এসব কিছুই পরস্পরের সাথে অঙ্গাঙ্গীভাবে জড়িত, যদিও বৈশিষ্ট্যগতভাবে এরা একে অপরের বিপরীত। সৃষ্টির প্রতিটি জীবের কাছে নিজের জীবন অমূল্য সম্পদ। জন্মের পর মৃত্যু অবধারিত বলেই বেঁচে থাকাটা এত মধুর।  মানুষ যখন অসুস্থ হয়ে পড়ে শুধুমাত্র তখনই সুস্থতার গুরুত্ব বুঝতে পারে। সেজন্যেই মানুষ তার সুস্বাস্থ্য রক্ষা করতে চায়। সুখ-দুঃখও তেমন বিপরীতধর্মী উপাদান বলে একে অপরের পরিপূরক। দুঃখ মানুষের মনকে যদি ব্যথিত করতে না পারতো তাহলে মানুষ সুখ ও আনন্দবোধের মর্ম বুঝতে পারতো না। সুখ লাভের আশায় মানুষ দুঃখ-কষ্টকে হাসিমুখে আলিঙ্গন করতে রাজি হয়। ঠিক একইভাবে প্রকৃতিতে অন্ধকারের উপস্থিতি আছে বলেই আলো এত মহিমাময়। অন্ধকার না থাকলে আলোর গৌরব এবং দীপ্তি এসব কিছুই ম্লান হয়ে যেত।

এটিও পড়ুন – 100+ গুরুত্বপূর্ণ ভাবসম্প্রসারণ

অন্য আরেকটি নমুনা নিম্নে দেওয়া হল

কাঁটা হেরি ক্ষান্ত কেন কমল তুলিতে
দুঃখ বিনা সুখ লাভ হয় কি মহিতে?

মূলভাব : জীবনে চলার পথে বাধা বিঘ্নকে ভয় করে পিছিয়ে পড়লে জীবনে সফলতা অর্জন করা যায় না। জীবনকে সাফল্যমন্ডিত করতে হলে সকল দুঃখ-কষ্ট, বাধা-বিঘ্ন জয় করে আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। কারণ কষ্টের মাধ্যমে অর্জিত সুখ দীর্ঘস্থায়ী হয়।

পদ্মকে তুলতে গিয়ে কাঁটার ভয় করলে চলবে না। কাঁটার ভয়ে বা কাঁটার আঘাতে যদি কেউ পদ্ম তুলতে না যায়, তাহলে তার পক্ষে পদ্ম আহরণ সম্ভব হবে না। তেমনি দুঃখকে বাদ দিয়ে জীবনে সুখের আশা করা যায় না। একটিকে চাইতে গেলে অপরটিকে মেনে নিতে হয়। ভাল-মন্দ, সুখ-দুঃখ জয়-পরাজয় ইত্যাদি নিয়েই আমাদের জীবন। একটি অপরটির পরিপূরক হিসেবে কাজ করে। দুঃখকে বাদ দিলে জীবনে সুখের অস্তিত্ব বিলীন হয়ে যায়। দুঃখের মধ্য দিয়েই জীবনে সুখের আস্বাদ লাভ করা যায়। দুঃখের ভয়ে যে তার নিজ কর্ম থেকে বিরত থাকে তার পক্ষে সুখ লাভ করা সম্ভব নয়। সফলতার পথ কণ্টকাকীর্ণ। এই কাঁটার ভয়ে যে সেই পথে হাঁটে না সে কখনো সফল হয় না। দুঃখ-যন্ত্রণা, পরিশ্রম, ত্যাগ-তিতিক্ষার মধ্য দিয়েই মানুষ তার গন্তব্যে পৌঁছায়। আর যারা দুঃখ-যন্ত্রণা, ক্লান্তির ভয়ে ভীত হয় তারা সহজেই ঝরে পড়ে সাফল্যের পথ থেকে। তাই সকল প্রতিকূলতাকে বরণ করেই মানুষকে সামনের দিকে অগ্রসর হতে হবে। পৃথিবীতে যাঁরা বড় হয়েছেন, সাধনায় সিদ্ধি লাভ করেছেন তাঁরা সবাই সাধনার দ্বারা দুঃখ-কষ্ট, বাধা-বিঘ্নকে অতিক্রম করেই হয়েছেন। পরাজয়ের গ্লানি, পরিশ্রমের কষ্টকে জয় করার মাধ্যমেই সফলতা অর্জন করা সম্ভব। রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যথার্থই বলেছেন- “ব্যর্থতাই মানুষের জীবনের প্রথম সাফল্য।”

এগুলিও পড়তে পারেন -

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

five + sixteen =

Back to top button